জোয়ান কোথায় পাওয়া যায়

জোয়ান কোথায় পাওয়া যায়


জোয়ান কোথায় পাওয়া যায় /  জোয়ান খাওয়ার উপকারিতা 

একটি আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে প্রকাশিত তথ্য অনুসারে জোয়ান হজম শক্তি বৃদ্ধিতে সাহায্য করে এছাড়া এটি শরীরের ওজন কমিয়ে স্বাস্থ্য বিশেষ ভাবে কাজ করে। আজকের আর্টিকেলটিতে আমরা জানবো জোয়ান কোথায় পাওয়া যায় জোয়ান খাওয়ার উপকারিতা এর বাহিরেও  জোয়ান এর দাম কত এবং জোয়ান খাওয়ার উপকারিতা ও অপকারিতা সম্পর্কে খুঁটিনাটি তথ্য। 


১ কেজি ৪৮০ টাকা ।

৫০০ গ্রাম ২৯০ টাকা ।

২৫০ গ্রাম ১৫০ টাকা ।

১০০ গ্রাম ৬৫ টাকা। 

৫০ গ্রাম ৩৫ টাকা ।

২৫ গ্রাম ২০ টাকা ।

আমাদের থেকে প্রিমিয়াম কোয়ালিটি জোয়ান হায কিনতে ও জোয়ান হায সম্পর্কে জানতে ক্লিক করুন এই লিংকে 

আরো অন্যান্য মসলা কিনতে ক্লিক করুন এই লিংকেwww.gazivai.com 

কল করুন আমাদের 01751358525 এই নাম্বারে অথবা সরাসরি ইনবক্স করুন

১০০০ টাকার পণ্য কিনলে ডেলিভারি চার্জ ফ্রি শুধুমাত্র ঢাকার জন্য

২০০০ টাকা পণ্য কিনলে ডেলিভারি চার্জ ফ্রি সারা বাংলাদেশ এর জন্য

বিঃ দ্রঃ ঢাকার জন্য ডেলিভারী চার্জ ৫০ টাকা। আর ঢাকার বাইরের জন্য ১০০ টাকা ডেলিভারী চার্জ। ঢাকার বাহিরের জন্য পণ্যের দাম এবং ডেলিভারি চার্জ আগে বিকাশ এর মাধ্যমে পরিশোধ করতে হবে। সুন্দরবন কুরিয়ার এবং এস,এ পরিবহন এ ডেলিভারী করা হবে


জোয়ান খাওয়ার উপকারিতা

 প্রথমেই আমাদের জেনে নিতে হবে জোয়ান কি জোয়ান কেন খাওয়া হয় তাহলে প্রথমে এটির উপকারিতা সম্পর্কে জেনে নেই চলুনঃ জোয়ানের উপকারিতা টি আমরা তুলে ধরব এটি একটি আন্তর্জাতিক স্বাস্থ্য বিষয়ক ওয়েবসাইট থেকে প্রকাশিত প্রতিবেদন।


জোয়ানের পানি: জোয়ানের পানি সাধারণত বেশি জনপ্রিয় এই পানি তৈরি করার উপকরণ হিসেবে একটি পাত্রে 2 লিটার পানি প্রথমে ভালোভাবে ফুটিয়ে নিন। ফুটানো পানিতে 1 টেবিল চামচ জোয়ান গুড়া যোগ করুন এবং তিন থেকে চার মিনিট ধরে আবার ভালোভাবে ফুটিয়ে নিন। ফুটানো পানির দিকে লক্ষ্য রাখুন পানির রং সোনালী হয় আসলে আগুনের আজ বন্ধ করুন এবং ঠান্ডা হওয়া পর্যন্ত অপেক্ষা করুন। 

এবার তৈরি হওয়া জোয়ান ঠান্ডা হয়ে এলে পানি সারাদিন পান করতে পারেন এছাড়া আপনি চাইলে বোতল জাত করে সংরক্ষন করতে পারেন। জোয়ান পানি খাওয়ার ফলে আপনার শরীরের  ওজন কমাতে সাহায্য করবে। 


জোয়ান ও মধু: মধু শরীরের জন্য খুবই উপকারী একটি উপাদান  খনিজ উপাদান ও অ্যামাইনো এসিড সমৃদ্ধ মধু বিপাক বাড়াতে সাহায্য করে। মধু কিছু হরমোনকে স্বয়ংক্রিয় করে ক্ষুধা কমিয়ে দেয় ফলে অতিরিক্ত খাওয়া নিয়ন্ত্রণের মাধ্যমে শরীরে অতিরিক্ত চর্বি জমা হতে পারেনা। যাদের শরীরের ওজন দ্রুত বৃদ্ধি পায় তারা মধু আর জোয়ান একত্রে মিশ্রিত করে খেলে দু সপ্তাহের মধ্যেই ভালো ফলাফল দেখতে পাবেন। 


 মধু মিশ্রিত জোয়ান পানি তৈরি করতে 25 গ্রাম জোয়ান গুঁড়া 250 মিলি পানিতে সারারাত ভিজিয়ে রাখুন। পরদিন সকালে এতে এক টেবিল চামচপরিমাণ মধু নিন ভালো করে মিশিয়ে। সকালে খালি পেটে পানি পান করুন ভালো ফলাফলের জন্য তিন মাস প্রতিদিন এভাবে পান করতে থাকুন। 

 বিশেষ সতর্কতাঃ 250 মিলি পানিতে কেবল 25 গ্রাম জোয়ান গুঁড়া মিশিয়ে নেবেন এর বেশি হেরফের করবেন না এতে স্বাস্থ্য ঝুঁকি থাকে।


কাঁচা জোয়ান:  যারা জোয়ান খেতে কোনো ঝামেলা বা কোন বেগ পোহাতে চায় না তারা প্রতিদিন সকালবেলা এক মুঠো করে জোয়ান চিবিয়ে খান। জোয়ান খাওয়ার পরে আধাঘন্টা সময় বিরতি নিয়ে তারপরে নাস্তা করুন জোয়ান খাওয়ার নাস্তা করার মধ্যে আধাঘন্টা বা 30 মিনিট সময় বিরত থাকুন।


 জোয়ান কোথায় পাওয়া যায় সকালে খালি পেটে খেলে এটা পরিপাক রস নিঃসৃত করে এবং হজমে সাহায্য করে। নিয়মিত এই নিয়ম অনুসরণ করে একমাসে দুই কেজি ওজন কমানো সম্ভব। 


মিশ্র মসলার গুঁড়া: এই গুঁড়া তৈরি করতে সমপরিমাণ মৌরি, জোয়ান, কালিজিরা ও দারুচিনি নিয়ে গুঁড়া করুন। বাতাস রোধক পাত্রে তা সংরক্ষণ করুন। এক গ্লাস পানিতে আধ চা-চামচ গুঁড়া মিশিয়ে দিনে দুবার খাওয়ার মাঝে এটা পান করুন। এই পানীয় কেবল সতেজই রাখে না বরং বাড়তি চর্বি কমাতেও সাহায্য করে। 


বন্ধুরা আমরা আমাদের আজকের  জোয়ান কোথায় পাওয়া যায় আর্টিকেলটিতে যে তথ্যটি আপনাদের সামনে উপস্থাপন করলাম তথ্যটি সম্পর্কে আপনার যদি কোন প্রশ্ন থাকে কিংবা জিজ্ঞাসা থাকে সেটি অবশ্যই কমেন্টে শেয়ার করুন।  কিংবা আপনার যদি উপরোক্ত উপর একটি ব্যবহারে কোন পূর্ব অভিজ্ঞতা থেকে থাকে সেটি ও অন্যদের সাথে শেয়ার করুন যেন তারা ক্রিম সম্পর্কে একটি সঠিক ও বাস্তব ধারণা হয়ে যেতে পারে



Post a Comment

Previous Post Next Post