ঘুমের ঔষধের নাম ও ছবি

ঘুমের ঔষধের নাম


 ঘুমের ঔষধ এর প্রতিক্রিয়া ক্ষতিকর দিক কোথায় পাওয়া যায় এটি না জেনে অনেকেই জানতে চাই ঘুমের ঔষধের নাম কি। 

 ঘুমের ঔষধের নাম জানার পূর্বে আমাদের ঘুমের ঔষধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া এটি কারা খেতে পারবে কারা খেতে পারবে না।  এসকল ধারনা থাকা উচিত নয়তো এই ঘুমের ঔষধ প্রাণনাশের হুমকি হতে পারে। 

 ঘুমের ঔষধের নাম ও ছবি 

চলুন জেনে নেই ঘুমের ঔষধের নাম ও ছবি ঘুমের ঔষধ খাওয়ার পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া ক্ষতিকর দিক ঘুমের ঔষধ কোথায় কিনতে পাওয়া যায় সবকিছু নিচে বিস্তারিত তুলে ধরা হলো ঘুমের ঔষধের নাম ও ছবি ।

ঘুমের ঔষধের নাম

আরো পড়ুনঃ ছেলেদের টাইটান জেল সরাসরি কিনতে ক্লিক- এখনই কিনুন

আরো পড়ুনঃ ২০ মিনিট করার ভিগা স্প্রে কিনতে ক্লিক- এখনই কিনুন

 আরো পড়ুনঃ টাইটান জেল পুরুষের লিঙ্গ এক থেকে তিন ইঞ্চি পর্যন্ত বড় মোটা করে।

মাইলাম ৭.৫ / milam 7.5 

মাইলাম হচ্ছে Midazolam নামের একটা ওষুধ যেতে খেলে ঘুম হয়. তবে এই ওষুধ দীর্ঘদিন খেলে আপনি ওষুধের উপর নির্ভর হয়ে যেতে পারেন । বাজারে থাকা অন্য অন্য ঘুমের ঔষধের চেয়ে এই ঘুমের ঔষধটি অধিক তীব্র মাত্রার,  ঔষধ ঠিক হওয়ার ছয় থেকে সাত মিনিটের মাথায় আপনার মাথা ধরা ঘোরা শুরু করতে পারে।  তবে ঔষধটি ডাক্তারের পরামর্শ ব্যতীত সেবন করা উচিত নয়। 

মাইলাম ৭.৫ / milam 7.5 

ঘুমের ঔষধের নাম 

 milam 7.5 price in bangladesh - প্রতিটি মাইলাম 7.5 ঔষধের মূল্য 10 টাকা করে প্রতিবক্সে 40 টি ঔষধ থাকে যার মূল্য 400 টাকা।  আপনি আপনার নিকটস্থ যে কোন ফার্মেসিতে ঔষধ কিনতে পারবেন।



আরো পড়ুনঃ মেয়েদের মিস মি ট্যাবলেট কিনতে ক্লিক- এখনই কিনুন

রিভোট্রিল ০.৫ মি / Rivotril Tablet

  • দৈনিক ওষুধ তিনটি সমান বিভক্ত মাত্রায় দেয়া উচিত।
  • যদি ওষুধ তিনটি সমান মাত্রায় বিভক্ত না হয়, তবে বৃহত্তর মাত্রাটি সর্বশেষে দিতে হবে।
  • প্রাপ্ত বয়স্ক : প্রাপ্ত বয়স্কদের প্রারম্ভিক মাত্রা দৈনিক ১.৫ মি.গ্রা. এর উর্ধ্বে হওয়া উচিত নয়।

rivotril 0.5 mg price in bangladesh

rivotril 0.5 mg price in bangladesh - প্রতিটি ঔষদের  নির্ধারিত মূল্য ৮ টাকা করে,  ডাক্তারের পরামর্শ ব্যতীত ঔষধটি কোনোভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়।

ঘুমের ঔষধের নাম ছবি


bromazepam / ব্রোমাজেপাম

তীব্র অনিদ্রা ঘুম না হওয়া মানসিক দুশ্চিন্তার রোধ করার জন্য অন্যতম কার্যকরী একটি ঔষধ হলো ব্রোমাজেপাম।  প্রতিটি ব্রোমাজেপাম ঔষধ 3 এমজি হয়ে থাকে, ঔষধটি সেবনে দ্রুত ঘুম তন্দ্রাচ্ছন্নতা তৈরি হয়।  তবে ঔষধটি কোনোভাবেই ডাক্তারের পরামর্শ অনুমতি পেসস্ক্রিপশন ব্যতীত খাওয়া উচিত নয়। 

আরো পড়ুনঃ মেয়েদের স্তন টাইট করার ক্রিম

     bromazepam / ব্রোমাজেপাম


bromazepam 3 mg price
- প্রতিটি ঔষধের কোম্পানি ও সরকারি নির্ধারিত মূল্য 5 টাকা করে

আরো  খবর পরুনঃ   যে ৬টি হিংস্র প্রাণী কামরালে নিশ্চিত মৃত্যু


ডায়াজেপাম / diazepam 5mg

ঘুমের ঔষধ এর মধ্য অন্যতম একটি ঔষধ হলো এই ঔষধটি অন্য ঔষধ এর মত এটি কাজ করে এটি খেলে মাথা ধরার সহ জিম জিম ভাব ইত্যাদি দেখা দিতে পারে।  ডায়াফ্রাম সেবনের জন্য অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শ থাকা জরুরী যে কোন ঘুমের ঔষধ সেবনের পূর্বে অবশ্যই ডাক্তারের পরামর্শ নেয়া উচিত।

Anquil 15 mg Tablet

আরো পড়ুনঃ  40 সাইজের কেডস জুতা কিনতে সরাসরি ক্লিক করুন এখনই কিনুন

আরো পড়ুনঃ  41 সাইজের কেডস  জুতা কিনতে সরাসরি ক্লিক করুন এখনই কিনুন

আরো পড়ুনঃ  42 সাইজের কেডস  জুতা কিনতে সরাসরি ক্লিক করুন এখনই কিনুন

আরো পড়ুনঃ  43 সাইজের কেডস জুতা কিনতে সরাসরি ক্লিক করুন এখনই কিনুন


ডোরম্যাক্স / Dormax 7.5 mg Tablet 

ডোর ম্যাক্স ট্যাবলেট বাজারজাত করে থাকে এরিস্টোফার্মা লিঃ ঔষধটি ডাক্তারের পরামর্শ অনুযায়ী। আমাদের ঘুমের ঔষধ হিসেবে পরিচিত  আপনি আপনার নিকটস্থ যে কোন ফার্মেসিতে ঔষধ টি খুব সহজেই পেয়ে যাবেন। 

 প্রতিটি ঔষধের মূল্য 10 টাকা করে প্রতিটি 30 পিছে প্রতি বক্স থাকে প্রতি বক্সের মূল্য হচ্ছে 300 টাকা করে।

 আরো পড়ুনঃ মাত্র সপ্তাহে মোটা হওয়ার ঔষধের নাম দাম ২২০ টাকা।


Anquil 15 mg Tablet

ঔষধটি মিডাজোলাম গ্রুপের একটি ঔষধ এটি মার্কেট করে থাকে জেনারেল ফার্মাসিটিক্যাল লিমিটেড।  ঔষধটি ঘুমের ঔষধ হিসাবে ব্যবহার করা হয় তবে ঔষধটি অনুমতি ব্যতীত বিক্রিও কেনা থেকে বিরত থাকা উচিত।  প্রতিটি ঔষধের কোম্পানীর নির্ধারিত মূল্য 15 টাকা করে। 

ঘুমের ঔষুধ কেনার উপায়

আরো পড়ুনঃ মোটা হওয়ার ইন্ডিয়ান গুড হেলথ কিনতে ক্লিক- এখনই কিনুন

আরো পড়ুনঃ মোটা হওয়ার পিউটন সিরাপ কিনতে ক্লিক- এখনই কিনুন

আরো পড়ুনঃ মোটা হতে ইন্ডিয়ান বডি বিল্ডো কিনতে ক্লিক- এখনই কিনুন


আমাদের আজকের পর্বে আমরা কয়েকটি ঘুমের ঔষধের নাম ও ছবি সহ বিস্তারিত তুলে ধরেছি।  পোষ্টটি সম্পর্কে আপনার যদি কোন রকম মন্তব্য থেকে থাকে তাহলে অবশ্যই কমেন্ট এর মাধ্যমে আমাদের সাথে শেয়ার করবেন ।


ঘুমের ঔষধের ছবি 

মিওপ্যাথিক চিকিৎসায় ব্যবহৃত অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ন কিছু হোমিওপ্যাথিক ঔষধ হল –

Nux vomica – রাতে বিছানায় যাওয়ার পরে সারাদিনের কাজ-কর্মের চিন্তা মাথার ভিতরে কিলবিল করতে থাকে ; ফলে ঘুম আসতে চায় না। বিশেষত যারা বিভিন্ন ধরনের মাদকদ্রব্য সেবন করে, বেশী বেশী চা-কফি পান করেন, যাদের পেটের অসুখ বেশী হয়, নাক্স তাদের অনিদ্রায় ভালো কাজ করে থাকে।

Opium – ঘুমঘুম ভাব কিন্তু ঘুম আসে না। খুবই সেনসিটিভ, ঘড়ির কাটার শব্দ কিংবা দূরের কোন মোরগের ডাকেও তার ঘুম ভেঙ্গে যায়। দুঃস্বপ্ন দেখে, কুকুর, বিড়াল, প্রেতাত্মা, বোবায়ধরা স্বপ্নে দেখে, ঘুমের মধ্যে দম বন্ধ হয়ে আসে ইত্যাদি লক্ষণ থাকলে অপিয়াম ঔষধটি খেতে হবে।


Kali phosphoricum – Kali phosphoricum অনিদ্রার একটি সেরা ঔষধ। বিভিন্ন কঠিন রোগ ভোগ, অত্যধিক শারীরিক-মানসিক পরিশ্রম, অপুষ্টি, দীর্ঘদিন যাবত স্তন্যদান করা ইত্যাদির মাধ্যমে সৃষ্ট নিদ্রাহীনতায় (বা অন্যকোন রোগে) ক্যালি ফস খেতে হয়। মাঝে মাঝে সপ্তাহ খানেক বিরতি দিয়ে দীর্ঘদিন খান। হৃদপিন্ড, স্নায়ু এবং মস্তিষ্কের উপর ইহার প্রশান্তিকারক ক্রিয়া বিদ্যমান। তাছাড়া যেহেতু এটি একটি ভিটামিন জাতীয় ঔষধ, তাই ইহার কোন ক্ষতিকর সাইড-ইফেক্ট নাই বললেই চলে।

Coffea cruda – মানসিক উত্তেজনা, উৎকন্ঠা, দুঃশ্চিন্তা থেকে অনিদ্রা দেখা দিলে তাতে কফিয়া প্রযোজ্য। সুসংবাদ শুনে, আনন্দের আতিষয্যে, শিশুদের দাঁত ওঠার বয়সে বা রাত জাগার কারণে অনিদ্রা হলে তাতে কফিয়ার কথা ভাবতে হবে। মহিলাদের সন্তান প্রসব পরবতী সময়ের অনিদ্রায় কফিয়া ভালো কাজ করে। খুবই সেনসেটিভ রোগীদের ক্ষেত্রে কফিয়া প্রযোজ্য যারা আওয়াজ সহ্য করতে পারে না, গন্ধ সহ্য করতে পারে না, স্পর্শ সহ্য করতে পারে না ইত্যাদি ইত্যাদি।

আরো পড়ুনঃ ছেলেদের মারাল জেল কিনতে ক্লিক- এখনই কিনুন

আরো পড়ুনঃ ছেলেদের টাইটান জেল সরাসরি কিনতে ক্লিক- এখনই কিনুন

ঘুমের ঔষধের নাম ছবি 

Ambra Grisea – সাধারণত চাকুরি বা ব্যবসা সংক্রান্ত দুঃশ্চিন্তার কারণে নিদ্রাহীনতা হলে তাতে এমব্রাগ্রিসিয়া প্রযোজ্য। সারাদিন পরিশ্রম করে ক্লান্ত-শ্রান্ত হয়ে বাড়ি ফিরে কিন্তু যখনই বালিশে মাথা রাখে, সাথে সাথেই ঘুম চলে যায়। এই ঔষধের একটি অদ্ভূত লক্ষণ হলো এরা অপরিচিত কেউ সামনে বা আশেপাশে থাকলে, পায়খানা করতে পারে না।

Hyoscyamus niger – মাত্রাতিরিক্ত মাথা খাটুনির কাজ (brainwork) করার কারণে অনিদ্রা দেখা দিলে তাতে হায়োসাইয়েমাস খেয়ে উপকার পাবেন। মাথার মধ্যে জোয়ারের পানির মতো ফালতু চিন্তার স্রোত বইতে থাকে। যদি শিশুরা ঘুমের মধ্যে চীৎকার করে ওঠে, কাঁপতে থাকে ; তবে তাতে হায়োসায়েমাস প্রযোজ্য।

ঘুমের ঔষধ


Sulphur – সকাল দিকে ভীষণ খিদে পাওয়া, শরীর গরম লাগা, মাথা গরম কিন্তু পা ঠান্ডা, মাথার তালু-পায়ের তালুতে জ্বালাপোড়া ইত্যাদি লক্ষণ পাওয়া গেলে নিদ্রাহীনতা রোগেও সালফার প্রয়োগ করে দারুণ ফল পাবেন।

ঘুমের ঔষধ

Belladonna – যদি মুখমন্ডল বা মাথা গরম বা লাল হয়ে থাকে, মাথা ব্যথার থাকে, শরীরে জ্বালা-পোড়াভাব থাকে ইত্যাদি কারণে নিদ্রাহীনতা দেখা দেয়, তবে তাতে বেলেডোনা প্রযোজ্য।

Chamomilla – শরীরের কোথাও মারাত্মক ব্যথার কারণে ঘুমাতে না পারলে, সেক্ষেত্রে ক্যামোমিলা প্রয়োগ করতে হবে। যারা অর্থহীন আজেবাজে স্বপ্নের কারণে শান্তিতে ঘুমাতে পারে না, ঘুমের ভেতরে ছটফট করতে থাকে, দুবর্ল-নার্ভাস মহিলা, শরীর গরম, প্রচুর পিপাসা ইত্যাদি লক্ষণ থাকলে ক্যামোমিলা উপকার দিবে।

আরো পড়ুনঃ ২০ মিনিট করার ভিগা স্প্রে কিনতে ক্লিক- এখনই কিনুন

আরো পড়ুনঃ বায়োমেনিক্স কিনতে ক্লিক- এখনই কিনুন

Arsenic album – মাত্রাতিরিক্ত অস্থিরতা, এক মূহূর্তও এক পজিশনে স্থির থাকতে পারে না, লক্ষণ থাকলে তাতে আর্সেনিক খেতে হবে। রাতে একবার ঘুম ভাঙলে আর ঘুম আসে না।

Gelsemium – সাধারণত যারা অতিরিক্ত মানসিক পরিশ্রম করেন অথবা বিষন্নতায় ভোগেন, তাদের অনিদ্রা দূর করতে ব্যবহৃত হয়।

Ignatia amara – সাধারণত শোক-দুঃখ-বিরহ-বিচ্ছেদ ইত্যাদি কারণে ঘুম না আসলে তাতে ইগ্নেশিয়া প্রযোজ্য। এদের ঘুম এত পাতলা হয় যে, তারা ঘুমের মধ্যে চারপাশের সবকিছুই শুনতে পায়।

Magnesium carbonica – সাধারণত পেটের কোন অস্বস্তি, ভীষণ শীতকাতর-জামাকাপড় খুলতে চান না, পেটে গ্যাসের উৎপাত, আক্কেল দাঁত ওঠা, সারারাত ঘুমিয়েও ফ্রেস লাগে না বরং ঘুম থেকে ওঠার পরে খুবই টায়ার্ড লাগে-মনে হয় সারারাত কুস্তি খেলেছেন, আগুন-ডাকাত-ঝগড়া-মরা মানুষ ইত্যাদি স্বপ্ন দেখে ইত্যাদি লক্ষণে ম্যাগ কার্ব খেতে পারেন।

Cocculus indicus – সাধারণত ভীতু, নার্ভাস, অত্যধিক পড়াশোনা করে এমন লোকদের ক্ষেত্রে কুকুলাস প্রয়োগ করতে হয়। রাত জেগে কাজ করার কারণে যদি অনিদ্রা দেখা দেয়, তবে অবশ্যই ককুলাস খাবেন।

ঔষুধ কেনার উপায়


ঘুমের ঔষুধ কেনার উপায়


Cannabis indica – ক্যানাবিস ইন্ডিকা সাধারণত দীর্ঘদিনের পুরনো এবং দুরারোগ্য অনিদ্রা রোগে প্রযোজ্য। যাদের একেক দিন একেক টাইমে ঘুম আসে, দিনে ঘুম আসে প্রচুর, রাতের ঘুমে কোন আরাম পাওয়া যায় না, রাতে গরম লাগে যেন কেউ তার গায়ে গরম পানি ঢালতেছে ইত্যাদি লক্ষণে ক্যানাবিস খেতে পারেন। যেহেতু এই ঔষধটি গাঁজা থেকে তৈরী করা হয়, তাই বলা যায় গাঁজার নেশা করার কারণে যদি কারো অনিদ্রা দেখা দেয়, তারা এটি খেয়ে উপকৃত হবেন।

এছাড়াও হোমিওপ্যাথিতে অনিদ্রা বা নিদ্রাহীনতার আরো অনেক ঔষধ আছে যা একজন দক্ষ ও অভিজ্ঞ চিকিৎসকের পক্ষে নির্বাচন করা সম্ভব


বর্তমানে ঘুমের ওষুধের খারাপ বা অপব্যবহার হওয়ার জন্য সরকার এবং ওষুধ নিয়ন্ত্রন সংস্থা ঘুমের ওষুধ ব্যবহারে রাশ টেনেছে। আপনার যদি কোনো আইনি বা সত্যি কারন থাকে তাহলে আপনি চিকিৎসকের পরামর্শ অনুযায়ী প্রয়োজনীয় medical documents বা সঠিক প্রেসক্রিপশন (prescription) দেখিয়ে ওষুধ কিনতে পারবেন


ঘুমের ঔষধের বিকল্প 

হালকা গরম দুধ – হালকা গরম দুধ অনায়াসেই ঘুমের ওষুধের বিকল্প হতে পারে। অনেকেরই রাতের ঘুমে সমস্যা হয়। যাঁরা রাতে ঠিক সময়ে ঘুমাতে পারছেন না বা বিছানায় শুয়ে এপাশ-ওপাশ করে সারা রাত কাটাচ্ছেন, তাঁরা রাতে ঘুমানোর আগে হালকা গরম দুধ খেয়ে শুতে পারেন। দুধে আছে ট্রাইপটোফান ও এমিনো অ্যাসিড, যা শরীরে ঘুমের আবেশ সৃষ্টি করে। এ ছাড়াও দুধের ক্যালসিয়াম মস্তিষ্কে ট্রাইপটোফান ব্যবহারে সহায়তা করে। এক গ্লাস দুধ খেলে আপনার মানসিক চাপ অনেকটাই কমে যায় এবং শরীর কিছুটা হলেও শিথিল হয়ে আসে। ফলে ঘুম সহজেই চলে আসে।

পাকা কলা – কলা খেলে রাতে ভাল ঘুম হয়। কলাকে ঘুমের ওষুদের বিকল্পও বলা যেতে পারে। কলায় আছে ম্যাগনেসিয়াম যা মাংসপেশীকে শিথিল করে। এ ছাড়াও কলা খেলে মেলাটোনিন ও সেরোটোনিন হরমোন নির্গত হয়ে শরীরে ঘুমের আবেশ নিয়ে আসে। তাই যাঁদের ঘুম হয় না, তাঁরা রাতের খাবারের সঙ্গে কলা রাখতে পারেন।

আলু – সেদ্ধ আলু বা রান্না করা আলু আপনার রাতের ঘুমের সহায়ক একটি খাবার হতে পারে। আলু খেলে ট্রাইপটোফানের সাহায্যে হাই তোলায় ব্যাঘাত সৃষ্টিকারী এসিড নষ্ট হয়ে যায়। ফলে আপনার মস্তিষ্ক বেশ দ্রুতই আপনাকে ঘুমিয়ে পড়তে সহায়তা করতে পারে।

মধু – মস্তিষ্কে ওরেক্সিন নামের একটি নিউরোট্রান্সমিটার আছে যা মতিষ্ককে সচল রেখে ঘুমের ব্যাঘাত ঘটায়। রাতে ঘুমানোর আগে মধু খেলে মস্তিষ্কে গ্লুকোজ প্রবেশ করে এবং ওরেক্সিন উৎপাদন বন্ধ করে দেয় কিছু ক্ষণের জন্য, যা আপনাকে দ্রুত ঘুমিয়ে পড়তে সহায়তা করবে।

আরো পড়ুনঃ ইন্ডিয়ান কস্তুরি গোল্ড কিনতে ক্লিক- এখনই কিনুন

আরো পড়ুনঃ ছেলেদের জিনজিন সিরাপ  কিনতে ক্লিক- এখনই কিনুন

বাদাম – রাতের ঘুমের জন্য আরেকটি উপকারী খাবার হলো বাদাম। যাদের রাতে ঘুমাতে সমস্যা হয় তারা প্রতিদিন রাতের খাবারে ১০/১২ টি বাদাম খেলে রাতের ঘুম ভাল হবে

ঘুমের ঔষধের অপকারীতা

সাধারনত একজন মানুষের ৭ থেকে ৮ ঘন্টা ঘুমানো উচিত্‍। যখন আপনার ঘুম ক্রমাগত ভাবে কম হবে আপনি তখন হয়তো ঘুমের ঔষধ থাওয়া শুরু করবেন। কিন্তু আপনি জানেন কি এই ঘুমের ঔষধের ক্ষতিকারক দিক গুলো? ঘুমের ঔষধ সেবন করতে হলে অবশ্যই চিকিত্‍সকের পরামর্শ গ্রহণ করতে হবে। কিন্তু নিয়মিত ভাবে রোজ ঘুমের ওষুধ সেবন করলে অনেক রকম সমস্যা হতে পারে।


ঘুমের ঔষধ সেবন করলে তন্দ্রাছন্নতা দেখা দিবে। আপনি যে দিন ঘুমের ঔষধ সেবন করবেন সেই দিন ঘুম পরিমান মত না হলে সেই ঘুমের প্রভাব পরের দিন ফেলবে। আর তন্দ্রাছন্ন অবস্থায় কোন যানবাহন সহ ভাড়ী যন্ত্রপাতি চালানো সম্পূর্ণ নিষিদ্ধ।

আপনি ঘুমের ঔষধ সেবন করলে আপনার ব্যবহার আচার দিন দিন পাল্টে যাবে। কারন ঘুমের চাহিদা আপনার শরীরে সবসময় থাকবে আর ঘুম লাগলে ক্লান্ত অনুভূত হয়। তখন ভালো কথাও আপনার শুনতে খারাপ লাগবে ও খিটখিটে মেজাজ প্রভৃতি নানারকমের লক্ষণ দেখা দিতে পারে।

ঘুমের ঔষধ একটি নেশা দ্রব্য মতই কাজ করে। ঘুমের ঔষধ গ্রহণকারীর হ্যালোসিনেশন সমস্যাগুলো দেখা দেয়। ঘুমের ওষুধের তালিকায় রয়েছে বহুল প্রচলিত নেশা দ্রব্যগুলো যা আমাদের শরীরের জন্য মারাত্বক ক্ষতিকর।

অতিরিক্ত ঘুমের ওষুধ সেবন করলে মানুষের মৃত্যু হতে পারে। ঘুমের ঔষধ মানুষের হার্ট ও ব্রেনের রক্তনালীর রক্ত চলাচল বন্ধ করে দেয়। আবার অনেকসময় অতিরিক্তি ঘুমের ওষুধ খেলে প্যারালাইসিস হয়ে যেতে পারে। এমনকি অনেকে কোমায় চলে যেতে পারে সেই সাথে স্মৃতিশক্তি হারিয়ে যাওয়ার আশংকা থাকে।

 আরোপড়ুনঃঅ নামের মেয়েরা কেমন হয়

 আরোপড়ুনঃআয়াত নামের অর্থ কি।Aya tnamer ortho ki

 আরোপড়ুনঃঅর্পিতা নামের অর্থ কি | Arpita namer ortho ki

ঘুমের ঔষধ খেলে শরীরে সবর্দা ঘুমের প্রভাব ফেলে। এর কারনে শরীর থেকে বর্জ্য বেড়িয়ে যেতে বাধাগ্রস্থ হয়। এতে শরীরে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা লোপ পায়। এছাড়া ঘুমের ঔষধ নিয়মিত খেতে থাকলে একই মাত্রার পাওয়ার আর কাজ করে না। তাই ওষুধ ছাড়াই ঘুমানোর চেষ্টা করুন

ঘুমের ওষুধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া

১. ডায়াজিপাম ওষুধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া

ডায়াজপাম সাধারণত ভালভাবে সহ্য করা হয়।তবে উচ্চ মাত্রায় নিলে অসাড়তা, মাথা ঘোরা, হালকা মাথাব্যথা, বিভ্রান্তি এবং অ্যাটাক্সিয়া হতে পারে।


২. ব্রোমাজেপাম ওষুধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া

সাধারণ পার্শ্বপ্রতিক্রিয়াগুলির মধ্যে ক্লান্তি, তন্দ্রা, পেশির দুর্বলতা, অস্থির পেশী, হ্রাস হওয়া সতর্কতা, বিভ্রান্তি, মাথাব্যথা, অ্যাটাক্সিয়া ইত্যাদি হয়ে থাকে


২. ক্লোনাজিপাম ওষুধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া

অবসাদ (Depression)

স্নায়বিক দুর্বলতা (Nervousness)

অনিয়ন্ত্রিত শারীরিক কার্যকলাপ (Uncontrolled Body Movements)

মেধা ক্ষমতার অভাব (Reduced Intellectual Abilities)

এলার্জি (Allergy)

যৌনতার অভাব (Decreased Sexual Urge)

উপর শ্বাসযন্ত্রের ট্র্যাক সংক্রমণ (Upper Respiratory Tract Infection)

ঝাপসা দৃষ্টি (Blurred Vision)

প্রশ্ন উত্তর

 আরোপড়ুনঃতানিয়া নামের অর্থ কি | Tania namer ortho ki

আরোপড়ুনঃSsc এরপূর্ণরূপ কি ?ssc full meaning

 আরোপড়ুনঃঅ নামের ছেলেরা কেমন হয়


8 Comments

  1. আমি জানতে চাই ক্লোনাজিপাম কি ঘুমের ওষুধ?

    ReplyDelete
  2. ঘুমের ওষুধ খেলে কি কোনো ক্ষতি হবে???

    ReplyDelete
    Replies
    1. Gomer medicine milam7.5 tablets 1sate besi kele ki koti hote pare.

      Delete
  3. আমার মোতে ঔষধ না খেয়ে মলম লাগানোটা বেটার

    ReplyDelete
    Replies
    1. হা ঔষধের চেয়ে মলমে প্বার্শপ্রতিক্রিয়া কম

      Delete
  4. Pase 0.5 কি ঘুমের ঔষধ??

    ReplyDelete
  5. quit 25 আর quit xr এর মধ্যে পার্থক্য কি এবং কার্যকারীতা কতটুকু

    ReplyDelete

Post a Comment

Previous Post Next Post