চিরতরে গ্যাস্ট্রিক কমানোর উপায়

গ্যাস্ট্রিক কমানোর উপায়

গ্যাস্ট্রিক বা এসিডিটির সমস্যায় ভোগেন না এমন লোক হয়তো হাতেগোনা কয়েকজন রয়েছে। আজকে চিরতরে গ্যাস্ট্রিক কমানোর উপায় সম্পর্কে কয়েকটি টিপস তুলে ধরব। 

বাংলাদেশের প্রাপ্ত বয়স্ক শতকরা 80 থেকে 90 পার্সেন্ট লোক যে কোনো গ্যাস্ট্রিক আলসার সমস্যায় ভুগে থাকেন। হয়তো বা পেটে গ্যাস জমে নয়তোবা সেপটিক আলসার রকম সমস্যায় সবাই কমবেশি ভুগে থাকেন। এমনকি অনেককে দেখা যায় অফিসে বা কোথায় ভ্রমণের সময় গ্যাস্টিকের ঔষধ সঙ্গে করে নিয়ে যায়।

এসিডিটি থেকে মুক্তির উপায় বাংলাদেশের দোকানগুলোতে বা ফার্মেসীগুলোতে গ্যাস্ট্রিকের ঔষধ অনেক পরিমাণে পাওয়া যায় কারণ এটি সবচেয়ে বেশি বিক্রিত ঔষধ। তবে আজকে আমরা এমন কয়েকটি টিপস দিব যেগুলো আপনি মেনে চললে গ্যাস্ট্রিকের ঔষধ আপনার খেতে হবে না। 

আরো  খবর পরুনঃ

 দীর্ঘক্ষন সহবাসের ৫ টি ঘরোয়া উপায়

গ্যাস্ট্রিক চিরতরে দূর করার জন্য অবশ্যই আপনার খাদ্যতালিকায় কিছু পরিবর্তন আনতে হবে। আপনি সব সময় নিয়মিত খাবার এবং স্বাস্থ্যকর খাবার খাবেন শারীরিক পরিশ্রম করবেন ফলে এতে গ্যাস তৈরি হবে না। চলুন জেনে নেই কোন খাবারগুলো পেটের গ্যাস কমায়।

আদা

গ্যাস কমানোর জন্য সবার উপরে থাকবে আদার নাম, গ্যাসের সমস্যা বুক জ্বালাপোড়া হজমের সমস্যা পাকস্থলীর নানা সমস্যা সমাধানে খুব ভালো কাজ করে। পেট ফাঁপা হলে পেটে গ্যাস জমলে বা পাকস্থলীতে কোন সমস্যা অনুভূত হলে লবণ দিয়ে কুচি করে আদা খান নিমিষেই সমাধান পেয়ে যাবেন। 

দই

আপনার যদি হজমের সমস্যা থাকে তাহলে নিয়মিত খাদ্য তালিকায় রাখতে পারেন। দই এর নানা প্রকার ব্যাকটেরিয়া থাকে যারা খাদ্য দ্রুত হজম করতে সাহায্য করে। এবং সেইসাথে পাকস্থলীতে থাকা ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়া গুলোকে ধ্বংস করে। খাবার দ্রুত হজম করতে পেটের গ্যাস এর সমস্যার সমাদানে প্রতিদিন দই খেতে পারেন।তবে অবশ্যই টক দই খাবেন। 

আরো  খবর পরুনঃ

 দীর্ঘক্ষন সহবাসের ৫ টি ঘরোয়া উপায়

শসা

শসা সালাদ হিসেবে এবং সবজি হিসাবে অনেকের কাছে জনপ্রিয়। শসা পেট ঠান্ডা রাখতে বেশ কার্যকরী একটি খাবার, খোসায় রয়েছে প্রচুর সিলিকা ও ভিটামিন সি যা দেহের ওজন কমাতে আদর্শ টনিক হিসেবে কাজ করে। একইসাথে নিয়মিত যদি শসা খান তাহলে দীর্ঘমেয়াদি কোষ্ঠ-কাঠিন্য দূর হয়ে যায়। 

পেপে

পেপের মধ্য পাওয়া যায় পেপেইম নামক এনজাইম যা হজম শক্তি বাড়াতে সাহায্য করে। নিয়মিত পেঁপে খাওয়ার অভ্যাস করলে গ্যাসের সমস্যা কম হয় কাঁচা পেঁপে এবং পাকা পেঁপে দু'ভাবেই খেতে পারেন সমান উপকারী। 

আনারস

ইংরেজিতে পাইনাপেল নামে পরিচিত এই ফলটি দ্রুত হজম শক্তি বৃদ্ধিতে খুবই সহায়ক। আনারস পরিপাকতন্ত্র পরিষ্কার রাখে এছাড়া আনারস ত্বকের জন্য খুবই উপকারী। 

হলুদ

এসিডিটি কমানোর উপায় হজম সংক্রান্ত সমস্যার জন্য হলুদ খুব কার্যকরী, চর্বি জাতীয় খাদ্য গুলো দ্রুত হজম করতে হলুদ ভূমিকা রাখে, তাছাড়াও হলুদের ব্যথানাশক উপাদান থাকে যা ব্যথা কমাতে সাহায্য করে। 

আরো  খবর পরুনঃ গ্যাস্ট্রিকের ঔষধের নামের তালিকা ১০ টি জনপ্রিয় ঔষধ

কলা

অনেকেই রয়েছে যারা খাবারে অধিক পরিমাণে লবণ খেয়ে থাকেন? চাঁদের এই অভ্যাস রয়েছে তারা নিয়মিত কলা খেতে পারেন কারণ কলায় থাকা পটাশিয়াম শরীরের পটাশিয়াম ও সোডিয়াম এর ভারসাম্য বজায় রাখে৷ কলা দেহ থেকে দূষিত পদার্থ বের করে দেয় । 

পানি

যাদের প্রচুর গ্যাসের সমস্যা রয়েছে তারা প্রচুর পরিমাণে পানি পান করুন। শরীর থেকে যেমন দূষিত পদার্থ বের করে দেয় তেমনি শরীরের অঙ্গ-প্রত্যঙ্গ গুলোকে ভাল মত পরিষ্কার রাখতে সাহায্য করে। গ্যাসের সমস্যা থাকলে সকালে ঘুম থেকে উঠে কোন কিছু খাওয়ার পূর্বে দুই গ্লাস করে পানি খাওয়ার অভ্যাস তৈরি করুন

আরো  খবর পরুনঃ

 দীর্ঘক্ষন সহবাসের ৫ টি ঘরোয়া উপায়

Post a Comment

Previous Post Next Post