দোয়া কুনুত এর আরবি এবং বাংলা উচ্চারণ ও অর্থ

দোয়া কুনুত

বিতরের নামাজে বিশ্বনবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম দোয়া কুনুত পাঠ করতেন। বিতিরের নামাযের শেষ রাকাতে দোয়া কুনুত পড়া হয়।  অর্থাৎ বিতির নামাজ সব সময় রাকাত পড়া হয় যেমন 5/3/7/9 রাকায়ত এইরকম ভাবে। এই বেজোড় রাকাতের শেষ রাকাতে নিয়মিত সূরা মিলানো সূরা পাঠ করার পর দুই হাত ছেড়ে আবার নতুন করে বেঁধে দোয়া কুনুত পাঠ করা হয়। 

দোয়া কুনুত আরবীঃ

بِسْمِ اللَّهِ الرَّحْمَٰنِ الرَّحِيمِ

اَللَّمُمَّ اِنَّ نَسْتَعِيْنُكَ وَنَسْتَغْفِرُكَ وَنُؤْمِنُ بِكَ وَنَتَوَكَّلُ عَلَيْكَ وَنُثْنِىْ عَلَيْكَ الْخَيْرَ وَنَشْكُرُكَ وَلاَ نَكْفُرُكَ وَنَخْلَعُ وَنَتْرُكُ مَنْ يَّفْجُرُكَ-اَللَّهُمَّ اِيَّاكَ نَعْبُدُ وَلَكَ نُصَلِّىْ وَنَسْجُدُ وَاِلَيْكَ نَسْعَى وَنَحْفِدُ وَنَرْجُوْ رَحْمَتَكَ وَنَخْشَى عَذَابَكَ اِنَّ عَذَابَكَ بِالْكُفَّارِ مُلْحِقٌ

দোয়া কুনুতের বাংলা উচ্চারণ:

আল্লাহুম্মা ইন্না নাস্‌তাঈ’নুকা, ওয়া নাস্‌তাগ্‌ফিরুকা, ওয়া নু’’মিনু বিকা, ওয়া নাতাওয়াক্কালু ‘আলাইকা, ওয়া নুছনী আলাইকাল খাইর। ওয়া নাশ কুরুকা, ওয়ালা নাকফুরুকা, ওয়া নাখলাউ’, ওয়া নাতরুকু মাঁই ইয়াফজুরুকা। আল্লাহুম্মা ইয়্যাকা না’বুদু ওয়া লাকানুসল্লী, ওয়া নাসজুদু, ওয়া ইলাইকা নাস’আ, – ওয়া নাহফিদু, ওয়া নারজু রাহমাতাকা, ওয়া নাখশা – আযাবাকা, ইন্না আযাবাকা বিল কুফ্‌ফারি মুলহিক্ব।

দোয়া কুনুত ছবি


দোয়া কুনুতের অর্থ:

হে আল্লাহ! আমরা তোমারই সাহায্য চাই। তোমারই নিকট ক্ষমা চাই, তোমারই প্রতি ঈমান রাখি, তোমারই ওপর ভরসা করি এবং সকল মঙ্গল তোমারই দিকে ন্যস্ত করি। আমরা তোমার কৃতজ্ঞ হয়ে চলি, অকৃতজ্ঞ হই না। হে আল্লাহ! আমরা তোমারই দাসত্ব করি, তোমারই জন্য নামায পড়ি এবং তোমাকেই সিজদাহ করি। আমরা তোমারই দিকে দৌড়াই ও এগিয়ে চলি। আমরা তোমারই রহমত আশা করি এবং তোমার আযাবকে ভয় করি। আর তোমার আযাবতো কাফেরদের জন্যই র্নিধারিত।

 আরো  খবর পরুনঃ   যে তিন সময় নামাজ পড়া হারাম নামাজ পড়া যাবে না………

 দোয়া কুনুত কখন পড়তে হয়

 দোয়া কুনুত কখন পড়তে হয় এই প্রশ্নটিই আমাদের সকলের জানা উচিত কারণ আমরা যেহেতু দোয়া কুনুত নামটি জানি তাই এটি কখন পাঠ করা উচিৎ তা আমাদের ছোটবেলা থেকেই শিখে নেয়া উচিত ছিল।  তবে যেহেতু আপনি জানেন না দোয়া কুনুত কখন পড়তে হয় সেজন্য বলা দোয়া কুনুত পাঠ করতে হয় এশার নামাজ শেষে যে বেতের নামাজ আদায় করা হয় তখন শেষ রাকাতে দোয়া কুনুত পড়া হয়।  বিতর নামায তিন রাকাত পাঁচ রাকাত ৭ রাকাত অর্থাৎ বিজোর যেকোন রাকাত পড়তে পারেন তবে অবশ্যই শেষ রাকাতে এটি পড়তে হবে। 

 বিতর নামাজে দোয়া কুনুত না পড়লে করণীয় কী 

 বিতর নামাজের তৃতীয় রাকাতে দোয়া কুনুত পড়তে হয়।  এই দোয়া কুনুত পাঠ করা ওয়াজিব তাই আপনার যত দ্রুত সম্ভব এই দোয়াটি শিখে নেয়া উচিত।  দোয়া কুনুত পাঠ করা যেহেতু ওয়াজীব তাই এটি আপনার পাঠ করা বাধ্যতামূলক। 

 কেউ যদি ভুল বসত দোয়া কুনুত না পরে সেটা হাদীসে বর্ণিত উক্ত অথবা অন্য কোন দোয়া তাহলে তার নামায পুনরায় পড়ে নিতে হবে। 

 বিতর নামাজে দোয়া কুনুত এর পরিবর্তে সুরা ইখলাস পড়া যাবে কি

 দোয়া কুনুত এর পরিবর্তে ইখলাস পড়া যাবে কিনা এ নিয়ে অনেকেই প্রশ্ন করে থাকে আসলে বিতর নামাজে দোয়া কুনুত পাঠ করা ওয়াজিব আর দোয়া কুনুত হচ্ছে দোয়া অন্যদিকে সূরা ইখলাস এর মাধ্যমে কোন দোয়া হয় না।  তবে দোয়া কুনুত না পারলে অন্য যে কোন দোয়া পড়লে নামায সহীহ হয়ে যাবে অবশ্য হাদিসে বর্ণিত যে দোয়া কোনটি উপরে উল্লেখিত রয়েছে এটা পড়াশুনা হাদীসে বর্ণিত দোয়াটি কেউ না জানলে দ্রুত শিখে নেয়া উচিত। 


 দোয়া কুনুত এর পরিবর্তে অন্য যে কোন দোয়া পড়ে নিলে দোয়া কুনুত হয়ে যাবে এছাড়াও কোরআনে বর্ণিত যে কোন দোয়া সম্মিলিত কয়েকটি আয়াত পাঠ করলে দোয়া কুনুত পাঠ হয়ে যাবে তবে হাদীসে বর্ণিত এই দোয়াটি পাঠ করা সুন্নত তাই এটি শিখে নেয়া উচিত।

Post a Comment

নবীনতর পূর্বতন